নামায না পড়ার শা’স্তি

''নামায না পড়ার শাস্তি''
🔗যারা নামায পড়েনা তাদের জন্য আল্লাহ্ পাক পনেরটি আজাব নির্দিষ্ট করিয়া রাখিয়াছেন।পনেরটি আজাবের মধ্যে ছয়টি দুনিয়ায়, তিনটি মৃ'ত্যুর সময়, তিনটি কবরের মধ্যে এবং বাকি তিনটি হাশরের মধ্যে দেয়া হইবে।
🔘 দুনিয়াতে ছয়টি আযাব' :

1⃣. তাহার জীবনে কোনরূপ বরকত পাইবেনা।
2⃣. আল্লাহ্ তার চেহারা হইতে নেক লোকের চিহ্ন উঠাইয়া লইবেন।
3⃣. যে যাহা কিছু নেক কাজ করবে, তাহার ছওয়াব পাইবেনা।
4⃣. তাহার দোয়া আল্লাহ্ পাকের নিকট কবুল হইবে না।
5⃣. আল্লাহ্ পাকের সমস্ত ফেরেশতা তাহার উপর অসন্তুষ্ট থাকবে।
6⃣. ইসলামের মূল্যবান নেয়ামত সমূহ হইতে বঞ্চিত করা হইবে।
🔘 মৃ'ত্যুর সময় তিনটি আজাব :
1⃣. অত্যন্ত দুর্দশাগ্রস্ত হইয়া মৃ'ত্যুবরণ করিবে।
2⃣. ক্ষুধার্ত অবস্থায় মৃ'ত্যু বরন করিবে।
3⃣. মৃ'ত্যুকালে তাহার এত পিপাসা পাইবে যে,তাহার ইচ্ছা হইবে দুনিয়ার সমস্ত পানি পান করিয়া ফেলিতে।
🔘 কবরের মধ্যে তিনটি আজাব :
1⃣. তাহার কবর এমন সংকীর্ণ হবে যে তাহার এক পাশের হাড় অ’পর পাশের হাড়ের সংগে মিলিত হইয়া চূর্ণবিচূর্ণ হইয়া যাইবে।
2⃣. তাহার কবরে, দিনরাত্রি সবসময় আগু'ন জ্বা'লাইয়া রাখা হবে।
3⃣. আল্লাহ্ তাহার কবরে একজন আজাবের ফেরেশ্তা নিযুক্ত করিবেন। তাহার হাতে লোহার মুগু'র থাকবে। সে মৃ'ত ব্যক্তিকে বলতে থাকবে যে,দুনিয়ায় কেন নামায পড় নাই। আজ তাহার ফল ভোগ কর। এই বলিয়া ফজর নামায না পড়ার জন্য ফজর হইতে জোহর পর্যন্ত, জোহর নামাযের জন্য জোহর থেকে আছর পর্যন্ত, আছরের নামাযের জন্য আছর থেকে মাগরিব পর্যন্ত, মাগরিবের নামাযের জন্য মাগরিব হইতে এশা পর্যন্ত এবং এশার নামাযের জন্য এশা হইতে ফজর পর্যন্ত লোহার মুগু'র দ্বারা আঘা'ত করতে থাকবে।

☑ আমা'দের মধ্যে যারা মুসলিম আছে আসুন ভাই আমর'া সকল ভাই ও বোনেরা নিয়মিত এবং সময়মত নামাজ পড়ি, অ’পর ভাইদের ও বলি নামাজ পরার জন্য। তাহলেই একমাত্র আমা'দের সমাজ এ প্রকৃত শান্তি ও মুক্তি আসবে। — with Balayet Meazi.