নারী নির্যাতনে ভয়ংকর বাংলাদেশ, একমাসে ধর্ষণের শিকার ১০৭ মহিলা ও শিশু!

এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: গোটা বিশ্ব করো’না সংক্রমণে রীতিমতো দিশেহারা। ব্যতিক্রম নয় বাংলাদেশও। কিন্তু করো’না সংক্রমণের কারনে মৃ'ত্যু, অসুস্থতা এবং অর্থনৈতিক বিপর্যয়েও মানুষ যখন দিশেহারা, তখনও বাংলাদেশে নারী নি'র্যাতনের ভয়ংকর দৃশ্য উঠে এল। শুধুমাত্র জুলাই মাসে বাংলাদেশে ধ'র্ষণের শিকার হয়েছেন ১০৭ মহিলা ও শিশু। আর ধ'র্ষণ-সহ মোট নারী নি'র্যাতনের পরিসংখ্যানটা একই রকম ভয়ংকর! শুধুমাত্র জুলাই মাসে ওপার বাংলায় ২৩৫ জন মহিলা ও কন্যাশিশুর উপর নি'র্যাতন হয়েছে।

ম'ঙ্গলবার বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদিকা মালেকা বানু এই তথ্য দেন। বাংলাদেশের ১৩টি প্রথম সারির সংবাদপত্রে প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তিতে পরিসংখ্যাটি তৈরি করেছে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ। তাতেই বলা হয়েছে, জুলাই মাসে হওয়া দেশের ১০৭টি ধ'র্ষণের ঘটনার মধ্যে গণধ'র্ষণের ঘটনা ঘটেছে ১৪টি। শুধু তাই নয়, জুলাই মাসে ধ'র্ষণের পর হ'ত্যা করা হয়েছে তিনজন নারীকে। ধ'র্ষণের চেষ্টা করার ঘটনা ঘটেছে ৯টি। সবচেয়ে আশঙ্কাজনক তথ্য হল, এক মাসে সে দেশে ঘটনা ১০৭টি ধ'র্ষণের ঘটনার মধ্যে শিশুদের স'ঙ্গে ঘটেছে ৭২টি ঘটনা।

কেন এত নারী নি'র্যাতনের ঘটনা? পরিসংখ্যান বলছে, নানা কারণে হ'ত্যা করা হয়েছে ৪৬ জন মহিলা ও কন্যা শিশুকে। পণের জন্যে অত্যাচারের শিকার ১৫ জন মহিলা। এক মাসে শুধু পণের জন্যে হ'ত্যা করা হয়েছে ৭ জনকে। শারীরিক ও মানসিক নি'র্যাতনের কারণে ১০ জন নারী আ'ত্মহ'ত্যা করেছেন এবং ১৮ জনের রহস্যজনক মৃ'ত্যু হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে বাল্যবিবাহের শিকার হয়েছেন পাঁচ জন নাবালিকা।

যদিও জুন মাসেও চিত্রটা খুব একটা আলাদা ছিল না। বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত জুন মাসে ৩০৮ জন নারী ও শিশু নি'র্যাতনের শিকার হয়েছিল। এর মধ্যে ধ'র্ষণের শিকার হয়েছিল ১০১ জন নারী ও শিশু। জুন মাসে গণধ'র্ষণের শিকার হয়েছিলেন ২৫ জন নারী। ধ'র্ষণের পর নৃ'শংসভাবে হ'ত্যা করা হয় সাত জনকে। ধ'র্ষণের চেষ্টার ঘটনা ঘটে ১৫টি।

আরও পড়ুন: Vivo S1 Prime লঞ্চের আগেই ট্যুইটারে ফাঁ'স ছবি-সহ যাব'তীয় ফিচার্স, আরও চাপে চিনা এই সংস্থা

পরিস্থিতি দেখে অনেকের মত, করোনা পরিস্থিতিতে অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের কারণে পরিবারে দুর্বল হিসেবে নারী বা শিশুটিকে নি'র্যাতের শিকার 'হতে হচ্ছে। তা ছাড়া, সমাজে আইনের প্রয়োগ যথাযথভাবে না হওয়া, মা'মলার নামে অ’পরাধের শিকার নারীদের উল্টো হয়রানির ঘটনাও ঘটছে। সেই কারণেই নারী ও শিশুদের প্রতি হিং'সা বেড়েছে। বিশেষ করে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে নানা ধরনের ফাঁ'দে জড়িয়ে প্রেমে প্রতারণা বা প'রকীয়ার পরিণতিতে এই ধরণের অ’পরাধের পরিমাণ বাড়ছে।